মোট দেখেছে : 242
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

আজকের সমাজ ?

বড়রাঃ আজকালকার ছেলেমেয়েরা ভার্চুয়াল লাইফ ছাড়া কিছু বোঝে না।সারাদিন এফবি,মোবাইল......

নিউ জেনারেশনঃ সারাদিন পড়ালেখা,জিপিএ-৫,ভবিষ্যতের চিন্তা এইসব শেষ করে কতটুকু সময় বা পায় আমরা।আর যদি সময় পেয়ে যায় সে সময়ে আর যায় হোক ক্রিস্টোফার কলম্বাস হওয়া যায় না।ওই মোবাইলেই দুনিয়া শুরু আর ওখানেই শেষ।

বাবা-মাঃ আমরা ওদের বয়সে থাকতে মাঠে কত খেলতাম।কত নদী, দিঘি সাঁতরে পাড় করতাম, কত গান বাঁধতাম, কত সৃজনশীল কিছু করতাম, এসব তো আর নিউ জেনারেশন করে না,পারে না(আসলে করতে দেয় না)।শুধু পড়ালেখাটাই তো করতে বলি তাও করে না।

নিউ জেনারেশনঃ আরে বাবা তোমাদের মত এত কিছু করবো কি করে, সে পরিবেশটাই তো বদলে দিচ্ছো।আমরাও পড়ার বাইরেও জগৎ দেখতে চায়।

আসলে সবাই ভাবে নিউ জেনারেশন সারাদিন মোবাইলে প্রেম করে বেড়ায়।তা কিন্তু নয়, আসলে আমরা মোবাইলে, নেটে আমাদের প্রেমিক- প্রেমিকা খুঁজিনা।

আমাদের না দেখা জগৎটাকে একটু দেখার চেষ্টা করি যেটা পড়া,পরীক্ষা,জিপিএ -৫,মেডিকেল, চুয়েট,বুয়েট,পাবলিক ইউনিভার্সিটি এর চাপে চাপা পড়ে গেছে।

হয়তো আমাদের বেছে নেওয়া রাস্তাটা ভুল।কিন্তু উপায় নেয়।

হয়তো এইটাই জেনারেশন গ্যাপ। এই গ্যাপটা যদি না গুছে তাহলে এই সামান্য জেএসসির জিপিএ -৫ এর জন্যেও ফুলের মত ছোট বাচ্চাগুলো এই দুনিয়া ছেড়ে যাবে।জীবন কী বোঝার আগেই জীবনের প্রতি হতাশ হয়ে যাবে এই নিউ জেনারেশন।

মা বাবার চাওয়া কিংবা আমাদের চাওয়া কোনোটাই ভুল না।চাপিয়ে দেওয়াটা ভুল। তাই একে অপরকে বুঝতে হবে।বোঝাতে হবে।

আমরা বলছি না আমাদের সব কথা মানতে হবে কিন্তু শোনাতো যায়।আপনারা কি চান সেটা আমাদের বুঝিয়ে বলুন।যদি কিছু কথা শুনলে বা বললে দুই জেনারেশনের দুরত্ব কমে,কিছু জীবনে সুখ আসে তাতে ক্ষতি কি?

আমি আমার ব্যক্তিগত চিন্তা থেকে কথাগুলো লিখলাম কেউ অন্যভাবে নিবেন না।সবার চিন্তা নাও মিলতে পারে।


লেখকঃ: তন্বী দাশ

আরো দেখুন

আরও সংবাদ