মোট দেখেছে : 62
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

বিশ্ব পর্যটন দিবসে দেশকে তুলে ধরার অদম্য প্রয়াস

সৃষ্টি ডেস্কঃ


বাংলাদেশকে ঘুরে ঘুরে দেখার আমন্ত্রণ পর্যটন করপোরেশনের। নিরাপত্তা নিশ্চিতে সচেষ্ট পুলিশ। আর বিদেশি পর্যটক আনতে ট্যুর অপারেটরদের জন্য আইন প্রায় চূড়ান্ত জানিয়ে বিমান সচিব জানালেন এ বছরই বিমান বহরে যুক্ত হচ্ছে অত্যাধুনিক আরো দুটি বিমান। পর্যটন শিল্পের প্রসারে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করার প্রত্যয় পর্যটন প্রতিমন্ত্রীর। 

 শুক্রবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে বিশ্ব পর্যটন দিবসের আলোচনা সভায় এভাবেই বাংলাদেশকে তুলে ধরতে নানা উদ্যোগের কথা জানান তারা।

বিশ্ব পর্যটন দিবসে দেশকে তুলে ধরার অদম্য প্রয়াসের অংশ এ সাইকেল র‌্যালি।

এরপর রাজধানীতে আলোচনা সভায় বক্তৃতা-গল্পে তুলে ধরা হয় কৃষ্টি-কালচার আর ইতিহাস-ঐতিহ্যে সমৃদ্ধ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে। এ সময় সৌন্দর্যে ভরা বাংলাদেশকে দেখার আমন্ত্রণ জানান বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান। 

চলমান নানা উদ্যোগ তুলে ধরে জানানো হয়, বাংলাদেশই হবে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ ও আকর্ষনীয় পর্যটন গন্তব্য।

ট্যুরিস্ট পুলিশের ডিআইজি মোল্লা ফখরুল ইসলাম বলেন, আমাদের নদী-সমুদ্র-পাহাড় আছে। বাংলাদেশকে একটা নিরাপদ পর্যটন গন্তব্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা করবো দেশি-বিদেশি সবার কাছে।

বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান রাম চন্দ্র দাস বলেন, ছুটিতে বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন দেশে যায়, তাদের কাছে আমাদের অনুরোধ হলো, আপনি পৃথিবীকে দেখেন তাতে কোনো আপত্তি নেই, তার সাথে অথবা তার আগে বাংলাদেশটাকে আরো বেশি করে দেখা দরকার। 

বিমান সচিব মহিবুল হক জানান, এ বছরই বাংলাদেশ বিমানের বহরে দুটি আর আগামী বছরের মাঝামাঝিতে যুক্ত হবে আরো তিনটি বিমান। যা অবদান রাখবে পর্যটন শিল্পের প্রসারে।

তিনি বলেন, বিমানে শুদ্ধি অভিযান চলছে। এ বছর যে দুটি বিমান আসবে সেগুলো ৭৮৭ এর চেয়েও আধুনিক। 

সম্ভাবনার সবটুকু কাজে লাগাতে বাংলাদেশের রূপ লাবণ্য তুলে ধরার কাজে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী।

তিনি বলেন, আমাদের দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে তরুণ প্রজন্মের সহায়তা দরকার।

জেলা পর্যায়ে পর্যটন করপোরেশনের অফিস খুলে স্থানীয় স্পটগুলো তুলে ধরার পরিকল্পনা জানান সভার বক্তারা।


আরো দেখুন

আরও সংবাদ