মোট দেখেছে : 113
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

চট্টগ্রামে সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যার ৭ম বার্ষিকীতে সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিবাদ দিবস ঘোষণা করার আহ্বান :মুকতাদের আজাদ খান

শিবু সেন গুপ্ত , চট্রগ্রাম:


সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যার বিচারের দাবিতে চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সমাবেশে বক্তারা ওই দিনকে সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিবাদ দিবস ঘোষণা করার আহ্বান জানান।

আজ ১৩ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরীর কদম মোবারক এতিমখানা মার্কেটস্থ চট্টগ্রাম অনলাইন প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স রুমে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওয়ার্ল্ড এসোসিয়েশন অব প্রেস কাউন্সিল ও বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সাবেক নির্বাহী সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রবীণ সাংবাদিক নেতা মইনুদ্দীন কাদেরী শওকত সাগর-রুনি হত্যার দিনটিকে সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিবাদ দিবস ঘোষণা করার আহ্বান জানান। তিনি উল্লেখ করেন, পরিতাপের বিষয় এই যে, সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যাকান্ডের পর ৭ বছর পেরিয়ে গেলও হত্যাকারীদের আজও শনাক্ত কিংবা গ্রেফতার করা যায়নি। তিনি বলেন, হত্যাকারীরা শনাক্ত কিংবা গ্রেফতার না হওয়ার মূল কারণ উক্ত মামলার তদন্ত প্রভাবমুক্ত ছিল না। তিনি আরো বলেন, পরিস্থিতি বলছে বিচার প্রক্রিয়াও থমকে আছে। তিনি অনতিবিলম্বে চাঞ্চল্যকর এই মামলার খুনীদের গ্রেফতার পূর্বক শাস্তির দাবি জানান।

সাপ্তাহিক আলোকিত সন্দ্বীপ পত্রিকার সম্পাদক অধ্যক্ষ মুকতাদের আজাদ খান-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশ পরিচালনা করেন দৈনিক দেশবার্তা ডট কমের সম্পাদক আবু ছালেহ্।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- দেশ-বিদেশ টুয়েন্টিফোরডট কম সম্পাদক কাজী জিয়া উদ্দিন সোহেল, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও সাহিত্য চর্চা পরিষদের সভাপতি সালাউদ্দিন লিটন, সাপ্তাহিক ক্রাইম ডায়রী’র চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রতিনিধি হোসেন মিন্টু, দৈনিক সান্ধ্যবাণী’র চট্টগ্রাম প্রতিনিধি কাজী জাহাঙ্গীর আলম, সাপ্তাহিক চট্টবাণী’র নির্বাহী সম্পাদক এস.ডি জীবন, দৈনিক আমাদের চট্টগ্রামের স্টাফ রিপোর্টার ওসমান সরওয়ার, দৈনিক ৭১ বাংলাদেশের সম্পাদক শেখ সেলিম, এস.টিভি’র প্রতিনিধি রোকন উদ্দিন জয়, সাপ্তাহিক আলোকিত সন্দ্বীপ পত্রিকার সহ-সম্পাদক শিপক কুমার নন্দী, সিটিজি টাইমস্ ডটকমের স্টাফ রিপোর্টার আবদুল কাইয়ুম, দৈনিক দেশবার্তা ডটকমের প্রতিনিধি রেজা জামশেদ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত: ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনিকে ঢাকা’র পশ্চিম রাজাবাজারে বাসায় হত্যা করা হয়। পরের দিন রুনি’র ভাই নওশের আলম শেরে-বাংলা নগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মামলা তদন্ত ভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। দুই মাসের বেশি সময় তদন্ত করে ডিবি রহস্য উদ্ঘাটন করতে পারেনি। পরে হাই কোর্টের নির্দেশে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল হত্যা মামলাটির তদন্তভার র‌্যাবকে দেয়া হয়। কিন্তু গত ৭ বছরেও মামলা তদন্তে অগ্রগতি কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

আরো দেখুন

আরও সংবাদ