মোট দেখেছে : 115
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টায় ভন্ড প্রেমিক গ্রেফতার

উজ্জল চক্রবর্ত্তী

রাজবাড়ীপ্রতিনিধি:


রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টাকালে পল্লী সংলগ্ন কুষ্টিয়া-চুয়াডাঙ্গ বোডিংয়ের সামনে থেকে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোরীকে উদ্ধার করে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ। এসময় মিজানুর রহমান ওরফে জিয়ারুল ইসলাম নামের নারী পাচারকারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।অপরিচিত মোবাইল নাম্বার থেকে আসা ফোন রিসিভ করে পরিচয়। এরই সূত্র ধরে আলাপ এবং পরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে নারী পাচারকারী চক্রের সদস্য মিজানুর রহমান ওরফে জিয়ারুল ইসলাম (৩৬)। এরপর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই কিশোরীকে এনে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টা করে ভন্ড প্রেমিক জিয়ারুল। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দিনগত রাতে।

 সে রাজশাহী জেলার বাঘা উপজেলার লক্ষীনগর গ্রামের তফিল উদ্দিন গারোয়ানের ছেলে।

উদ্ধার হওয়া কিশোরী জানায়, সে হবিগঞ্জ জেলা সদরের সুলতানশি গ্রামের দরিদ্র পরিবারের মেয়ে সে। মাসখানেক আগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে জিয়ারুলের সাথে তার পরিচয় হয়। এরই সূত্র ধরে জিয়ারুল তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে গত বুধবার তাকে বিয়ের প্রলভোন দেখিয়ে স্বাক্ষাত করে। জিয়ারুলের প্রতি আস্থা রেখে সে ওইদিনই তার হাত ধরে ঘর ছাড়ে। কিন্তু ভন্ড প্রেমিক জিয়ারুল তাকে বিয়ে করার পরিবর্তে সরাসরি দৌলতদিয়া যৌন পল্লীতে বিক্রির জন্য নিয়ে আসে। সে আরো জানায়, জিয়ারুল আমার সাথে প্রেমের নামে প্রতারনা করেছে। সময় মত পুলিশ আমাকে উদ্ধার না করলে আমার জীবনটা নষ্ট হয়ে যেত।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মো. এজাজ শফী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টাকালে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় মিজানুর রহমানকে হাতে নাতে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে মামলা দায়ের করে বৃহস্পতিবার রাজবাড়ী আদালতে পাঠানে হয়েছে।


আরো দেখুন

আরও সংবাদ