মোট দেখেছে : 123
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

সেন্টমার্টিনে নিরাপত্তা জোরদারে ফের বিজিবি মোতায়েন

মিয়ানমারের চক্রান্ত নস্যাতের পাশাপাশি নিজেদের শক্তিশালী অবস্থান জানান দিতে সেন্টমার্টিনে টহল দিতে শুরু করেছে বিজিবি। মোতায়েনের দ্বিতীয় দিনেই কার্যক্রম শুরু করে বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষায় নিয়োজিত এ বাহিনী। সেই সঙ্গে ২২ বছর পর স্থায়ী বর্ডার আউট পোস্ট-বিওপি স্থাপনের কাজ শুরু করেছে।

১৯৯৭ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী নিয়োজিত ছিলো এখানে। পরে তা টেকনাফে সরিয়ে নেয়া হয়। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের অন্তর্গত সেন্টমার্টিন দ্বীপকে মিয়ানমার বেশ কয়েকবার তাদের মানচিত্রে উপস্থাপন করে নিজেদের বলে দাবি করার অপচেষ্টা করে। এরকম বাস্তবতায় এ দ্বীপের সীমান্ত নিরাপত্তা রক্ষায় ২২ বছর পর রোববার (৭ এপ্রিল) থেকে ফের পুরোদমে কাজ শুরু করেছে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি।

টেকনাফ বিজিবি ২ ব্যাটালিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক লে. কর্নেল সরকার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বহির্দেশের কোনো আক্রমণ যাতে এখানে না আসে। এই দ্বীপকে নিয়ে অন্য কেউ যাতে কোনো চিন্তা না করতে পারে তা বন্ধ করা। আমাদের দায়িত্ব পালনের জন্য এখানে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

সেন্টমার্টিনকে মিয়ানমারের দাবি করাকে অযৌক্তিক এবং ভারী অস্ত্রসহ বিজিবি মোতায়েনের সরকারের সিদ্ধান্তকে সঠিক বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক লে. কর্নেল ফোরকান আহমদ বলেন, মিয়ানমার কিভাবে সেন্টমার্টিনকে তাদের অংশ ভাবে এটা হাস্যকর বিষয়। 

জেলা প্রশাসক জানান, সীমান্ত নিরাপত্তা জোরদারে রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তে সেন্টমার্টিনে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

কক্সবাজার  জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, রোহিঙ্গারা মানব পাচারের শিকার হচ্ছে। মাদকের পরিমাণ ওই এলাকায় বেড়ে গেছে। নিরাপত্তার জন্যই বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। 

এখন কোস্টগার্ডের পাশাপাশি বিজিবি সদস্যরাও সীমান্ত নিরাপত্তায় দ্বীপটিতে দায়িত্ব পালন করবে।

আরো দেখুন

আরও সংবাদ