মোট দেখেছে : 734
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

গ্রেপ্তারকৃত হত্যা মামলার আসামির বাবাকে রক্ত দিয়ে জীবন বাচাঁলেন পুলিশ কর্মকর্তা

মোঃ রেজাউল করিম:


চট্টগ্রাম মহানগরীর আকবরশাহ থানাধীন কৈবল্যধাম রেললাইন সংলগ্ন রশিদের কলোনিতে গত ২৫ অক্টোবর ২০১৯ ইং তারিখ রাতে গায়ে হলুদে গান বাজনাকে কেন্দ্র করে নির্মমভাবে ছুরির আঘাতে "জসিম উদ্দিন(১৮) নামে একজন হত্যাকাণ্ডের ১৬ ঘণ্টার মধ্যে হত্যার রহস্য উদঘাটন সহ হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত ৬ জন আসামীর মধ্যে ৫ জন আসামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।কিন্তু ৩নং আসামী এমদাদ তাৎক্ষণিকভাবে আত্মগোপন করায় দীর্ঘ চার মাস ধরে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করে ও কোনো কূলকিনারা করতে পারছিল না। গোপন সূত্রে জানতে পারেন এমদাদ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এলাকায় অবস্থান করছেন। খবর পাওয়ার পর এসআই বদিউল আলমের নেতৃত্বে পুলিশের একাধিক টিমের সমন্বয়ে দ্রুত অভিযান চালায়। শনিবার (১৪ মার্চ) চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করা হয় এমদাদকে।কিন্তু আসামীর বাবা অসুস্থ হওয়ায় হাসপাতালে রক্ত দিতে যেতে হয় তাকে।



কিন্তু গ্রেপ্তার হওয়ার কারণে ছেলে (আসামি) বাবাকে রক্ত দিতে না পারলেও গ্রেপ্তার অভিযান পরিচালনাকারী পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর নিজেই রক্ত দিয়েছেন। এই পুলিশ কর্মকর্তা হলেন চট্টগ্রাম নগর পুলিশের আকবর শাহ থানার এসআই বদিউল আলম মুন্না।গ্রেপ্তারের পর এমদাদ পুলিশকে জানান, তার বাবা মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি। বাবাকে এক ব্যাগ ও-পজিটিভ রক্ত দেওয়ার জন্য মেডিক্যালে এসেছিলেন।এসআই বদিউল আলম মুন্না বলেন, ‘হত্যা মামলার আসামি হলেও রক্ত দেওয়ার কথা শুনে ভেতরে মানবতাবোধ জাগে।  সাথে সাথে মেডিক্যালে খোঁজ নেওয়া হয় আসামির বাবার। ঘটনার সত্যতা পেয়ে এবং রক্তের গ্রুপও একই হওয়ায় নিজেই এক ব্যাগ রক্ত দিয়েছি। 



’পরে আসামিকে থানা হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়।  আগামীকাল এমদাদকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

আরো দেখুন

আরও সংবাদ