মোট দেখেছে : 104
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

মহামানব বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন আজ

বাঙালি জাতির ইতিহাসে উজ্জ্বল কালান্তরের সূচনা করেছিলেন তিনি। দুর্বার গণআন্দোলন গড়ে উঠেছিল তার হাত ধরেই। যা পরবর্তী সময়ে রূপ নেয় মুক্তির আন্দোলনে। বাঙালির কাছে তিনি 'বঙ্গবন্ধু' নামেই পরিচিত। বিশ্লেষকরা বলছেন,

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়ন করতে পারলেই আলোর পথে এগোবে বাংলাদেশ। শুধু দোর্দণ্ডপ্রতাপ নেতা নন তিনি, চিফ ইন কমাণ্ডার নন, ব্যক্তি পূজার বেদীতে আসীন কোন গুরু নন তিনি। বাঙালির পরম বন্ধু তিনি। শেখ মুজিবুর রহমান। এই

নামটিতেই ইতিহাসের দরজা খুলে যায়, সেখান থেকেই আমরা ফিরে যাই আজ থেকে ঠিক একশ বছর পিছনে। দেখতে পাই নিভৃত পল্লী টুঙ্গিপাড়া। সেখানেই শেখ পরিবারে জন্মে নিচ্ছেন একটি শিশু।একদিকে, বাংলার নিভৃত পল্লীতে বেড়ে

উঠছেন কিশোর শেখ মুজিব, অন্যদিকে, হাসিক সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে। বৃটিশ শাসনের বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিরোধ গড়ে তুলছে ভারতবর্ষ। টালামাটাল অবস্থা।কিশোর শেখ মুজিব চোখ মেলে দেখছেন, কি গভীরভাবেই না অবহেলিত স্বদেশ,

পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ মানুষ।

নবগঠিত পাকিস্তান একটি বুদবুদ ছাড়া কিছুই নয়, তা অনুধাবনে সময় নেননি শেখ মুজিব। রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় তিনি পেরিয়েছেন ভাষা আন্দোলন, যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ছয় দফা আন্দোলন, উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান আর সত্তুরের সাধারণ নির্বাচন।

নানা ঘটনা পেরিয়ে বাঙালি জীবনে আসলো ৭ মার্চ ১৯৭১।

পাক সার জমিন সাদ বাদের বিরুদ্ধে সোনার বাংলার চেতনা রোপিত করলেন বঙ্গবন্ধু। নিরীহ বাঙালিকে, সশস্ত্র যোদ্ধায় পরিণত করলেন। এর মধ্য দিয়েই বাঙালি অর্জন করলো হাজার বছরের কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতার স্বাদ।

আরো দেখুন

আরও সংবাদ