মোট দেখেছে : 1,047
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

ঘূর্ণিঝড়ের সময় জাহাজকে তীরে না এসে সমুদ্রে থাকতে বলা হয় কেন ?

বড় ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় অন্যতম। ঘূর্ণিঝড় মানেই ভয়ানক বিপদ। এসময় সমুদ্রে থাকা সব জেলে ও জাহাজকে তীরে নিরাপদ স্থানে ফিরে আসতে বলা হয়। তবে জানলে অবাক হবেন যে, ঘূর্ণিঝড়ে মালবাহী জাহাজকে তীরে না এসে সমুদ্রে থাকতে বলা হয়।


এর পেছনেও রয়েছে একটি রহস্য। দেরি না করে চলুন তবে জেনে নেয়া যাক মালবাহী জাহাজকে তীরে না এসে সমুদ্রে থাকতে বলার কারণ-


১. জাহাজ বিশেষ ধরনের দড়ি দিয়ে বাধা থাকে বন্দরে, ঝড়ের সময় এই দড়িগুলো সহজেই ছিড়ে যায় ফলে পাশাপাশি থাকা জাহাজগুলোর মধ্যে সংঘর্ষ হতে পারে। যা শুধু জাহাজের মানুষের জীবনই বিপন্ন করবে না, সঙ্গে সঙ্গে পরিবেশের বিপর্যয়ও ঘটাতে পারে। যদি তাদের তেলের ট্যাংক ছিদ্র হয়ে যায়। তবে বাড়বে আরো বিপদ।


২. প্রত্যেকটা পোর্টের জাহাজ চলাচলের জন্য একটা চ্যানেল থাকে। এই কারণে ঝড়ের সময় দড়ি ছিড়ে যদি জাহাজ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চ্যানেলে আড়াআড়ি ভাবে আটকে যায়, তাহলে ঝড়ের পর জাহাজটি না সরানো পর্যন্ত ওই বন্দর আর ব্যবহার করা যাবে না। যা খুব সময় এবং ব্যয় সাপেক্ষ।


২০১৭ সালের ৩০ মে বঙ্গোপসাগরের বাংলাদেশ উপকূলে আঘাত হানা ঘূণির্ঝড় মোরার ঢেউয়ের তোড়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে অবস্থান কারী ‘এমভি ক্রিস্টাল গোল্ড’ নামের একটি দৈত্যকায় জাহাজ নোঙর ছিঁড়ে পারকি সৈকতে উঠে আটকা পড়ে।


তারপর বহু চেষ্টা করেও জাহাজটি আর সমুদ্রে নামানো বা ভাসানো যায়নি। পরে এই জাহাজটি ভাঙ্গার জন্য নিলামে ক্রয় করে ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজ নামে একটা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি না পাওয়ায় এবং পরিবেশের ক্ষতির শঙ্কায় এটি কাটাও যাচ্ছে না। এমন অবস্থায় জাহাজটি সমুদ্র সৈকতের জন্য গলার কাঁটা হয়ে আছে।


এই কারণে সমুদ্রে ঘূর্ণিঝড় দেখা দিলে মালবাহী জাহাজকে সমুদ্রতীরে না এসে গভীর সমুদ্রে সমুদ্রে অবস্থান করতে বলা হয়।

আরো দেখুন

আরও সংবাদ